কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন কত | কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হয়ে কিভাবে আয় করা যায় জেনে নিন A টু Z

কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন কত? একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বছরে মোটামুটি কত ডলার ইনকাম করতে সক্ষম হোন! বাংলাদেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের কদর কেমন! আজকের এই নিবন্ধনটিতে মূলত আমরা এ সম্পর্কেই ধারণা প্রদান করব। তাই যে বা যারা স্বপ্ন দেখছেন ক্যারিয়ার হিসেবে “কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পেশা” কে বেছে নেবেন, তাদেরকে জানাই আমাদের আজকের আলোচনা পর্বে স্বাগতম। 

কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন

তো সুপ্রিয় পাঠক বন্ধুরা, তাহলে আসুন জেনে নেই– কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন কত সে সম্পর্কে। কেননা শুধু চাকরি করলেই হবে না, চলার মত বেতনও তো পেতে হবে! আর তাই ক্যারিয়ার পরিকল্পনার পূর্বে বেতন সম্পর্কে অবগত হওয়াও জরুরী। আরও পড়ুনঃ পোল্যান্ড কাজের বেতন কত?

কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন

একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার এর বেতন মূলত দক্ষতা, যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করা হয়। শুধু এই চাকরির ক্ষেত্রেই নয়, বরং যেকোনো চাকরির ক্ষেত্রেই কর্মরত ব্যক্তির এই বিষয়গুলো বিবেচনা করে স্যালারি প্রদান করা হয়ে থাকে। তাই এক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম নয়। 

আপনি যদি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়াশোনা করেন এবং নিজেকে দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলেন, নিজের স্কিল ডেভেলপ করেন, তাহলে দেশ এবং বাইরের দেশ উভয় স্থানে একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকরি করতে পারবেন। 

আমাদের দেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং এর যেমন কদর রয়েছে তার থেকে বেশি কদর রয়েছে বাইরের দেশগুলোতে। আর তাই আপনি যদি আমাদের এই দেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার পেশায় নিযুক্ত হোন তাহলে এক ধরনের স্যালারি ভোগ করতে পারবেন এবং বাইরের দেশে কোন ভাল কোম্পানিতে কম্পিউটার বা সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে নিযুক্ত হতে পারলে ভিন্ন অ্যামাউন্ট এর সেলারি গ্রহণের সুযোগ পাবেন।

তাই বাংলাদেশের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন কত এবং বাইরের দেশের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন কত সে সম্পর্কে জানতে পরবর্তী স্টেপ দুইটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। 

আরও পড়ুনঃ চ্যাটজিপিটির কারণে উচ্চ ঝুঁকিতে পড়বে যেসকল পেশা

বাংলাদেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন

বাংলাদেশে একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার মূলত প্রতিবছরে গড়ে ৬২২,০০০ টাকা সেলারি পেয়ে থাকে। তবে দক্ষতা, যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, শিক্ষার স্তর, চাকরির শিরোনাম এবং শিল্পসহ বিভিন্ন কারণের উপর ভিত্তি করে বেতনের পরিসীমাটা কম অথবা বেশি হয়। আর তাই বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন গড়ে প্রতিবছরে তিন লক্ষ থেকে শুরু করে দেড় লক্ষ টাকা বা তারও বেশি। 

আর হ্যাঁ এই দেশটিতে সাধারণত কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের তিন ধরনের সেলারি প্রদান করা হয় অর্থাৎ তিন ধরনের সেলারি রেঞ্জ দেখা যায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এর বেতন প্রদানের ক্ষেত্রে। সেগুলো হলো:-

  • বাংলাদেশ স্টার্ট আপ ছোট এবং মাঝারী ধরনের কোম্পানির সেলারি রেঞ্জ, যেটা মাসে ১২ থেকে শুরু করে ১৮ হাজারের বেশি টাকার মতো।
  • বাংলাদেশী স্টাবল এবং বড় কোম্পানির সেলারি রেঞ্জ, যেটা মাসে ১৮ থেকে ২৫ হাজার প্লাস টাকার মতো।
  • বিদেশি কোম্পানির ব্রাঞ্চ, বাংলাদেশী জায়ান্ট কোম্পানির সেলারি রেঞ্জ, যেটা মাসে ২৫ থেকে ৪০ হাজার টাকার কাছাকাছি। 

এক কথায়, আপনি যদি মিড লেভেলের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হয়ে থাকেন তাহলে সে ক্ষেত্রে মান্থলি ৩৫ থেকে ৮০ হাজার টাকা স্যালারি পেতে পারেন। মিডলেবেল বলতে মূলত এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ইঞ্জিনিয়ারদের বোঝানো হয়। অতএব আপনি যদি শুরুর দিকে থাকেন এবং সর্বনিম্ন বেতনের কথা চিন্তা করেন তাহলে আপনার বেতন ১২ থেকে ২৫ এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। 

আর আপনি যদি মিড লেভেলের পজিশনে অবস্থান করেন সে ক্ষেত্রে মাসে ৩৫ থেকে ৮০ হাজার টাকা স্যালারি পেতে পারবেন, যেটা বছরে হিসাবে গড়ে এক লাখ বিশ হাজার থেকে এক লাখ আশি হাজার টাকার কাছাকাছি।

অন্যদিকে আপনি যদি টপ লেভেলের ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন সে ক্ষেত্রে, বিদেশি কোম্পানির সাথে দেশে বসেও কাজ করার সুযোগ পেতে পারেন এবং এক্ষেত্রে বেতনের পরিসীমাটা সবসময় ৪ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ পর্যন্ত হতে পারে। 

এক কথায়, আমাদের দেশে প্রাথমিক অবস্থায় কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা এবং যারা এন্ট্রি লেভেলের জব এ অভিজ্ঞ তাদের ক্ষেত্রে বেতন ৫০০০০ থেকে ১ লক্ষ টাকা এবং পরবর্তীতে সেটা বেড়ে গিয়ে দুই থেকে তিন লাখ এবং তার অধিক। 

আর এই সকল দিক বিবেচনা করে বলা চলে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার বাংলাদেশের হিসাবে মূলত অধিক আয়ের একটা পেশা। যেটার সাহায্যে সুন্দর একটা ক্যারিয়ার পরিকল্পনা করা সম্ভব। 

আরও পড়ুনঃ শূন্য থেকে কোটিপতি হওয়ার উপায়

বাইরের দেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন কত?

কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন দেশ থেকে বিদেশে ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। কেননা বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বেতন প্রতিষ্ঠানের ধরন, অভিজ্ঞতা, প্রশিক্ষণের স্তর, জাতীয় অর্থনীতি ইত্যাদি বেশ কিছু উপাদানের উপর নির্ভর করে, যা ইতোমধ্যে আমরা উল্লেখ করেছি।

তবে সাধারণত বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের মাসিক বেতন একেবারে সমতম। তবে বিভিন্ন উচ্চমানের সংস্থাগুলি, বিশেষত বিদেশী প্রতিষ্ঠানগুলি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য আরও উচ্চ বেতন প্রদান করে থাকে। যেমনঃ

✓ আমেরিকান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারের সাধারণ বেতন বছরে প্রায় $95,000-$150,000. 

✓ যুক্তরাজ্যে একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারের সাধারণ বেতন বছরে প্রায় £35,000-£60,000.

✓কানাডায় একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারের সাধারণ বেতন বছরে প্রায় CAD $60,000-CAD $110,000.

✓অস্ট্রেলিয়ায় একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারের সাধারণ বেতন বছরে প্রায় AUD $70,000-AUD $120,000. 

অতএব আপনি যদি বাইরের দেশগুলোতে একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে প্রফেশনালি কাজ করতে পারেন তাহলে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তাই যে বা যারা প্রফেশনালি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার কে বেছে নিতে আগ্রহী তারা এ সম্পর্কে আরো বিষয় জানুন, প্রাথমিক জ্ঞান অর্জন করুন এবং নিজেকে গড়ে তুলুন একজন টপ লেভেলের প্রফেশনাল কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে।

তো পাঠক বন্ধুরা, আজ এ পর্যন্তই সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

All Easy Google News
Setu
Setu

Assalamu Alaikum, I am Setu. An ordinary girl studying in honors. Currently engaged in the world of technology. I am very passionate about blogging and writing. I like to learn and share something new😇

Articles: 134

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *