বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করুন এই নিয়মে

অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আসায় অভিযোগ পত্র লেখার নিয়ম জানার প্রয়োজন পরে অনেকেরই। আর তাইতো বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদনপত্র লেখার নিয়ম কি, এ-সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব আমরা আমাদের আজকের নিবন্ধনটিতে। আপনি যদি– পল্লী বিদ্যুৎ মিটার পরিবর্তনের জন্য আবেদন করতে চান অথবা বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য আবেদন পত্র লিখতে চান তাহলে আজকের দেওয়া নিয়ম অনুসরণ করে তা লিখতে পারবেন।

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন

কেননা বিদ্যুৎ বিল বেশি আসার জন্য দরখাস্ত এবং বিদ্যুৎ অফিসে অন্যান্য প্রয়োজনে যেকোনো দরখাস্ত লেখার নিয়ম প্রায় একই। তো পাঠক বন্ধুরা তাহলে আসুন জেনে নেই– বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করবেন কিভাবে এবং বিদ্যুৎ বিল কমানোর উপায় ও বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র লেখার নিয়ম প্লাস সেটা সঠিক স্থানে পাঠানোর বিষয়ে আরো খুঁটিনাটি তথ্য।

আরও পড়ুনঃ বিক্রয় কি | বিক্রয় কাকে বলে

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন

মূলত হাতে আসা বিদ্যুৎ বিলে যদি টাকার অংশ অস্বাভাবিক মনে হয় সেক্ষেত্রে বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করার প্রয়োজন পরে। সত্যি বলতে প্রচন্ড গরমে বিদ্যুতের বাড়তি ব্যবহার হয় ফলে কখনো কখনো মোটা অংকের টাকা বিল হিসেবে উঠে আসে। কিন্তু এমন কিছু মাসে দেখা যায় যে, বিদ্যুতের টাকার পরিমান টা একদমই মাথা খারাপ করার মতো অবস্থানে পৌঁছায়।

বলা যায় যে– গত কয়েক মাস যাবত যে বিলটা আসতো হঠাৎ করে এক মাসেই সেই বিল বেড়ে গিয়ে দ্বিগুন অথবা তিনগুনে গিয়ে পৌঁছেছে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই বিদ্যুৎ বিল স্বাভাবিক মাত্রায় নিয়ে আসার জন্য বিদ্যুৎ অফিসের কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে কল করা উচিত অথবা নিজস্ব জেলা বা উপজেলায় অবস্থানরত বিদ্যুৎ কেন্দ্র অফিসগুলোতে গিয়ে দরখাস্ত প্রেরণ করার মাধ্যমে আহ্বান জানানো প্রয়োজন, যাতে করে আপনার অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আসার সমস্যাটার সমাধান মেলে। 

আমরা মূলত আজকের আলোচনার মাধ্যমে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আসার কারণ, বিদ্যুৎ বিল বেশি আসলে করণীয় বা বিদ্যুৎ বিল কমানোর সেরা কিছু উপায় সম্পর্কে আরো বিস্তারিত আলোচনা করব। তার আগে দেখে নিন- কিভাবে আপনি বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র অর্থাৎ দরখাস্ত লিখতে পারেন।

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র লেখার নিয়ম

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র লেখার নিয়ম হলো–

প্রথমত: বরাবর লিখে আবেদনপত্র লেখা শুরু করা

দ্বিতীয়ত: যার নিকট আবেদন পত্রটি পাঠাচ্ছেন তার নাম লেখা। (এক্ষেত্রে মূলত পদবী লেখা হয়ে থাকে, যেমন ধরুন ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার অথবা সহকারী জেনারেল ম্যানেজার)

তৃতীয়ত: কোন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাসিন্দা সেই কেন্দ্রের নাম উল্লেখ করা।

চতুর্থত: বিষয় উল্লেখ করা। অতএব আপনি কেন দরখাস্তটি পাঠাচ্ছেন এবং দরখাস্তটির মূল বিষয়বস্তু কি!

পঞ্চমত: স্যার অথবা মহাশয় লিখেই সম্বোধন করে আপনার সমস্যার কথা আবেদন পত্রের মাঝখানে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা। অবশ্যই এ ক্ষেত্রে খুব স্বল্প বাক্যে পুরো বিষয়টি উপস্থাপন করার চেষ্টা করবেন।

সষ্ঠমত: বিনীত নিবেদিকা বা নিবেদক লেখার পরবর্তীতে আপনার নাম, ঠিকানা স্থান এবং মিটারের নাম্বার তুলে ধরা।

ব্যাস এটুকুই। মূলত এই ছয়টি ধাপ পর্যায়ক্রমে পূরণ করার মাধ্যমে একটি দরখাস্ত লেখা হয়ে থাকে। যদি উদাহরণ হিসেবে বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র বাংলা ও ইংরেজিতে দেখতে চান তাহলে নিচের দরখাস্ত দুটি পড়তে পারেন।

আরও পড়ুনঃ ক্রেতা ভ্যালু কি | কিভাবে ক্রেতা ভ্যালু সৃষ্টি করা যায়?

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র বাংলায়

মনে করুন যে– বিদ্যুতের বিল অতিরিক্ত আসার ফলে আপনি আপনার উপজেলার বিদ্যুৎ অফিস কেন্দ্রে অবস্থানরত ম্যানেজারের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিবর্গের নিকট আবেদনপত্র পাঠাবেন। আর আপনি মূলত সিংড়া উপজেলার একজন বাসিন্দা। অতএব সেক্ষেত্রে মূলত নিচের নিয়মে আবেদন পত্র বা দরখাস্তটি উপস্থাপন করতে হবে। 

বরাবর,

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার,

সিংড়া জোনাল অফিস (নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি)

বিষয়: অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন।

মহাশয়,

সবিনয় নিবেদন এই যে আমি নাটোর জেলা সিংড়া উপজেলার একজন বাসিন্দা। আমার বৈদ্যুতিক মিটার নাম্বার ৩২৪৫৬৫৩৩৬৬৬। গত কয়েক মাস যাবত আমার বৈদ্যুতিক বিল অতিরিক্ত বেশি আসার কারণে সমস্যায় ভুগছি। আমি মূলত আগের মতই বিদ্যুৎ খরচ করছি, তবে বিদ্যুৎ বিল অস্বাভাবিক আসার জন্য মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

অতএব, মহোদয়ের নিকট আবেদন বিষয়টি সম্পর্কে তদন্ত করে এবং অবাস্তব বিল প্রধান বন্ধ করে সঠিক সেবা গ্রহণে নিশ্চয়তা প্রদান করিতে বাধিত থাকিবেন। 

বিনীত নিবেদিতা

স্বর্ণলতা দাশগুপ্ত

তারিখ: ২৩-১০-২০২৩,

স্থান: সিংড়া নাটোর

ঠিকানা: নলবাতা বড় বেলঘড়িয়া, সিংড়া নাটোর।

মিটার নং: ৩২৪৫৬৫৩৩৬৬৬

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র ইংরেজিতে

To: Singra Zonal Office (Natore Palli Vidyut Samiti)

Deputy General Manager,

Subject: Application for reduction of excess electricity bill.

Sir,

I am Swarnlata Dasgupta live in Singra, My electric meter No 254862545. I would like to inform you that my electric bills for the last few months have been heavily charged while the electric consumption has remained the same
I shall be obliged if you kindly make an enquiry into the matter and stop issuing such absurd bills.

yours faithfully
Swarnlata Dasgupta

Dated:23-10-2023
Place: Singra-Natore
Address: Nalbata, Singra-Natore
Meter No.254862545.

আরও পড়ুনঃ লক্ষ কি | লক্ষ কি পরিকল্পনা

বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করবেন কিভাবে ?

ইতিমধ্যে আমরা বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন পত্র বা অভিযোগ পত্র লেখার নিয়ম তুলে ধরেছি। এ পর্যায়ে মূলত এসম্পর্কে আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করব। বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করার প্রক্রিয়া দেশের প্রতিটি বৈদ্যুতিন সরকারী ও বেসরকারী সরকারী বিদ্যুৎ সরকার অনুসরণ করে। আর তাই নিম্নলিখিত ধাপগুলি অনুসরণ করে বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন করতে পারেন:

আপনার বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করুন: আপনার ইলেক্ট্রিসিটি সরবরাহকারী কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে কোথাও আপনার বিদ্যুৎ বিল কমানোর সম্ভাব্য উপায় জানতে পারেন।

সাবসিডি স্কীম চেক করুন: আপনার প্রদেয় বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য সরকারি ধারা প্রদান করা যেতে পারে। এই স্কীমগুলি স্থানীয় সরকার বা বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির দ্বারা পরিচালিত হয়। তাই এ বিষয়ে প্রথমত রিসার্চ করুন। 

শহরে বা গ্রামের বিদ্যুৎ সেবা পরিষদ অথবা কোম্পানির দফতরে যোগাযোগ করুন: সার্ভিস প্রোভাইডারের অফিসে গিয়ে, বা তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে, বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য প্রয়োজনীয় ফর্ম সাবমিট করুন বা আবেদন পত্র পাঠান

আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস সাথে রাখুন: আপনার বিদ্যুৎ বিল কমানোর আবেদন করতে সাথে আপনার আইডেন্টিটি প্রুফ (যেমন, আইডি কার্ড, পাসপোর্ট) এবং বর্তমান বিদ্যুৎ বিলের অবস্থা নির্ধারণ করতে বিদ্যুৎ বিলের কাগজ সাথে রাখুন।

আবেদনের অবস্থা নিরিক্ষণ করুন: আবেদন জমা দেওয়ার পর, আপনি আপনার আবেদনের অবস্থা নিরিক্ষণ করতে পারেন এবং বিদ্যুৎ বিলে কোন বুদ্ধিমত্তা বা সাবসিডি প্রয়োজন হলে তা জানতে এই প্রক্রিয়া সহায়ক হয়ে থাকে।

আপনি চাইলে আরও দেখতে পারেন নিচের এই ভিডিওটি। যার সাহায্যে জানতে পারবেন- বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল আসার জন্য অভিযোগ পত্র লেখা ও পাঠানোর নিয়ম সম্পর্কে A টু Z.

আরও পড়ুনঃ রোগিং এর অপর নাম কি | রোগিং কেন করবো?

বিদ্যুৎ বিল কমানোর উপায়

বিদ্যুৎ বিল অতিরিক্ত হলে সেক্ষেত্রে করনীয় কি এ সম্পর্কে মূলত আমরা ইতিমধ্যে একটি সুস্পষ্ট আলোচনার মাধ্যমে তুলে ধরেছি। এখন আসুন এ পর্যায়ে জেনে নেওয়া যাক বিদ্যুৎ বিল কমানোর ১০ টি উপায়। যথা–

  • বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পণ্য ব্যবহার করা
  • ব্যবহারের পর ইলেকট্রনিক সামগ্রীর প্লাগ খুলে রাখা
  • মিটার নিয়মিত পরীক্ষা করা
  • এসির তাপমাত্রা সব সময় স্বাভাবিক রাখা
  • বাসায় তাপ নিরোধক উপাদান ব্যবহার করা
  • প্রাকৃতিক বায়ু চলাচল ব্যবস্থাকে গুরুত্ব দেওয়া
  • সবুজায়নের দিকে নজর দেওয়া
  • বৈদ্যুতিক সামগ্রী নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ করা
  • সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার এবং
  • সাশ্রয়ী অভ্যাস গড়ে তোলাসহ প্রভৃতি।

তবে এই প্রক্রিয়াটি আপনার অবস্থান এবং বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির নীতিগুলির উপর নির্ভর করতে পারে, তাই সবচেয়ে ভাল উপায় হলো- স্থানীয় বিদ্যুৎ সেবা প্রদায়কের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা এবং তাদের অতিরিক্ত বিল আসার বিষয়ে জানানো। 

তো পাঠক বন্ধুরা, বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আবেদন সম্পর্কিত আলোচনার ইতি টানছি আজ এখানেই। সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং ভিডিওটি যদি আপনার কাছে হেল্পফুল মনে হয় তাহলে অবশ্যই শেয়ার করবেন। সবাইকে আল্লাহ হাফেজ। 

আরও দেখুনঃ

All Easy Google News
Setu
Setu

Assalamu Alaikum, I am Setu. An ordinary girl studying in honors. Currently engaged in the world of technology. I am very passionate about blogging and writing. I like to learn and share something new😇

Articles: 134

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *